- জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, শিক্ষা সংবাদ

Read this article, who are frustrated by the admission of the National University

“What will the Politics of National University do?”

“Good job again by honoring college? It is a matter of time to get out of the passage. ”

“Where the public university students do not have a job there
What else would they do in the National? ”

“Public university, medical, engineering did not have a chance? Your career is over here. ”

The words are fairly popular in our society. National University students and those who are in the admission test, they have to hear them often. These words are further narrated in front of anyone, especially if someone is not able to get a chance and if they can not afford to go to a private hospital, they are obliged to read in the nation.

আচ্ছা ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি মানেই কি খারাপ? সেখানে যারা পড়ে তারা কি স্টুডেন্টের কাতারে পরে না? ওরা কি এসএসসি-এইচএসসি পাশ করে, ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে ন্যাশনালে ভর্তি হয়নি?
…নাকি যারা এইচএসসি তে ফেইল করে শুধু তাদেরই ন্যাশনালে ভর্তি করানো হয়?
আচ্ছা একটা জিনিস ভাবুন তো-
ধরুন দুইটা ছেলে বা মেয়ে একটি পাবলিক ভার্সিটিতে ভর্তি পরীক্ষা দিল যেখানে আসন সংখ্যা এক হাজার !

তারা দুজন একই কলেজ থেকে পাশ করা, দুজনই গোল্ডেন পাওয়া, দুজনই ভালোমতো প্রস্তুতি নিয়েছে।

ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গেল একজন ১০০০ তম আরেক জন ১০০১ তম।

হয়তো দুজনের ভর্তি পরীক্ষার স্কোরের ব্যাবধান একটি প্রশ্নের মানের সমান ও হবে না।
অর্থাৎ ব্যাপারটা কি দাঁড়ালো, সকালেও যারা পরীক্ষার হলে দুজন সমকক্ষ বা প্রতিদন্দ্বি ছিল রাতে রেজাল্ট দেওয়ার পর তাদের একজন হয়ে গেল পাবলিক ভার্সিটির মেধাবী (!) ছাত্র আরেকজন ন্যাশনালের বা প্রাইভেটের থার্ড ক্লাস (!) ছাত্র। তাইনা?

…ভর্তি পরীক্ষার রেজাল্ট দেওয়ার সাথে সাথেই কি চান্স না পাওয়া ছাত্রটির সব মেধা হারিয়ে যায়? নাকি তার মেধাকে দমিয়ে রাখা হয় আমাদের নীচু মানের কথার আঘাতে। সবার বিবেকের কাছে প্রশ্ন রইলো।

Actually, intellectuals do not decrease but the streets of intellectual development are closed and in some cases the students who do not have any disadvantage due to frustration, lose their self-confidence and make the biggest mistake of life.
… There is a difference between public university, where the students of the university are in regular education, students of national schools are not the same and their time durations can not hold their spouse and ignore studies.

যেহেতু ন্যাশনালে পাশ করে বের হতে সময় বেশী লাগে তাই চাকুরীর প্রস্তুতি নেওয়ার সময়টাও বেশী পাওয়া যায়, তাই আমার বিশ্বাস ন্যাশনালের ছাত্রছাত্রীরা যদি ”কোথাও চান্স পাই নি” ভেবে নিজেকে ছোট মনে না করে ”শুধু আসন সংখ্যার স্বল্পতায় চান্স পাইনি তাই বলে আমি একেবারে ফেলনা না, সময় মত দেখিয়ে
দিবো আমিও পারি” এই মানসিকতা নিয়ে ভর্তি পরীক্ষার আগে যেই স্পৃহা নিয়ে প্রস্তুতি নিয়েছে সেভাবেই ভর্তির পর থেকেই নিজেকে তৈরী করে তাহলে ওরাও কোথাও ঠেকবে না এটা নিশ্চিত।

কারন,

…আমি দেখেছি যেখানে বুয়েট থেকে পাশ করেও বিসিএস দিয়ে ব্যার্থ হয় সেখানে বগুড়ার ”আজিজুল হক কলেজ” থেকে বিসিএস এ ফার্স্ট হয়।

…আমি দেখেছি যেখানে পাবলিকের স্টুডেন্ট বেকার ঘুরে সেখানে ন্যাশনালের স্টুডেন্ট সরকারী ব্যাংকে চাকুরি পায়।
বিশ্বাস না হলে বাংলাদেশের প্রশাসন, পুলিশ এবং বিভিন্ন সরকারি বেসরকারী কোম্পানি ও ব্যাংক গুলোতে খবর নিয়ে দেখ। সেখানে ভাল ভাল পদে ন্যাশনালের ছাত্র-ছাত্রীদের পরিমানটা দেখে হয়তো অবাক হয়ে যাবেন।

… Well, the seats of the public university in Bangladesh are only a few thousand but the number of good job rank is more than that, who will work in the rest of the posts?

That means it means that if you fall in the field of publicity or medicare, the rest will be employed.
Not at all.

See a thing … a few days ago everyone asked, “What is the result?” Now ask? Does not. now
Want to know “Where are you going.”
Likewise, after a few years, “What do you do?”

It does not matter where it passed from.
Even at the time of marriage and if someone is unemployed in the public and someone else goes to the BCS BCS cadre. Surely, the value of the BSC cadre in the country of the marriage market will be high.
…………
…………

So do not break any of the younger brothers and sisters, and then revive yourself. Your university’s reputation
Why do you go, your own college because of your own

পরিচিতি লাভ করাবে।
নিজেকে অবহেলা কর না। নিজেকে যদি
নিজেই সম্মান দিতে না জান তাহলে অন্যের কাছে দাম পাবে না।

…হ্যা পিছনে টেনে রাখার মত কথা বলার অনেক মানুষই পাবে, তাই বলে সেগুলো কেয়ার করবে না!

এখন যে যা বলে বলুক, কর্ণপাত না করে নিজের অবস্থান থেকেই চুড়ান্ত যুদ্ধের প্রস্তুতি নাও এবং দেখিয়ে দাও আর যারা কিছু বলে তাদের বলে দাও-

”Keep calm and let me run according to my way, you don’t
have to think about me. Just oil your own machine now.
I know well about my potential and i’ll show my
excellence at the ultimate time.”

…দেখা হবে বিজয়ে।
গুটিয়ে নয়, চুটিয়ে বাঁচো।

[] কার্টেসিঃ নাজমুল হোসেন []

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *